মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

বিশ্বাস




"বিশ্বাস" আসলে কি?//

আমি যেটা জানি সেটাই কি বিশ্বাস?
যেটা আমার কাছে নিশ্চিত সত্য, বিশ্বাস কি সেটাই?

আমি একবার আমার এক শিক্ষককে বিশ্বাস নিয়ে প্রশ্ন করেছিলাম। তার উত্তরটা ছিল এ রকম ।
"ব্যক্তি, সমাজ, বক্তব্য, বিষয়,জগৎ,স্রষ্টা, জীবন ইত্যাদি সম্পর্কে আমরা যে ভিত্তিমুলক ধারনা পোষন করি, যে ধারনার উপর নির্ভর করে প্রতিটি দিন অতিবাহিত করি...আমি মনে করি তাই বিশ্বাস। এটাকে মুখের কথা, মনে পোষন অথবা কাজ করার মধ্য দিয়ে প্রকাশ করা যায়। এক এক স্থানে এক এক রুপে এর গুরুত্ব প্রকাশ পায়।
দুধ সাদা, ফুল সুন্দর, পাখি উড়তে পারে...এরকম যার যা চরিত্র তা মেনে নিয়ার নামই বিশ্বাস।"

আমি যেটা দেখেছি অথবা জেনেছি যে" এটা নিশ্চিত সত্য" সেটা কেন "বিশ্বাস" হতে যাবে??
এটাতো জ্ঞান।
বিশ্বাসের ব্যাপারটা তো তখনই আসবে যখন আপনি সন্দিহান হয়ে পড়বেন।যেটা আমি/আপনি নিশ্চিত ভাবে যানি না অর্থাৎ যেখানে সন্দেহের অবকাশ আছে সেখানেই তো আমরা "বিশ্বাস" শব্দটা ব্যবহার করি।

মাটিতে রাখা একফুট চেপটা তক্তার উপর দিয়ে যদি আমাদের হাঁটতে বলা হয় তাহলে আমরা অনায়াসেই সেটা করতে পারবো । কেউ কেউ হয়তোবা দৌড়েই পার হয়ে যাবে। কিন্তু সেই তক্তা যদি দুটো বিল্ডিং এর ছাদে বসানো হয় তখন কি আমরা অনায়াসে সেটা করতে পারবো ??
প্রথম ক্ষেত্রে আমরা পারি কেননা আমাদের বিশ্বাস আছে যে...পড়ে যাবো না। কিন্তু ছাদে বসানো তক্তার ক্ষেত্রে সেই বিশ্বাস আর থাকে না। এ থেকে বুঝা যায়, আমাদের সাহসের উপরও বিশ্বাসের একটা প্রভাব রয়েছে ।

বিশ্বাস এবং সন্দেহের মাঝে দারুণ একটা সম্পর্ক আছে।সন্দেহ কম করি মানেই বিশ্বাস করি।আবার বিশ্বাস কম করি মানেই সন্দেহ করি।যেখানে সন্দেহ নেই সেখানে আর "বিশ্বাস " শব্দটা আসবে না।

কোন বৃত্তের পরিধির কোন এক বিন্দুর পরের বিন্দু হতে যদি সন্দেহকে কমাতে শুরু করি,তাহলে তার বিপরীত পাশে অবস্থিত বিন্দুটি থেকে বিশ্বাসের আরম্ভ হবে।আর বিশ্বাসের চুড়ান্ত বিন্দুটিকে আমরা সত্য হিসেবে ধরে নিবো। আবার সন্দেহ যখন চুড়ান্ত হবে তখন তার অবস্থান আরম্ভ বিন্দুর পিছনে হবে।অর্থাৎ সত্য।

কেউ যদি মিথ্যাকে চুড়ান্ত ভাবে বিশ্বাস করে সেটাও তার কাছে সত্য।অর্থাৎ কেউ যদি সন্দেহ অথবা বিশ্বাসের মাধ্যমে কোন বিষয়ে নিশ্চিত হয় তখন সেটাই তার জ্ঞান।

অতএব এটা বলাযায় যে.....
/"জ্ঞান যদি কোন বইয়ের মলাট হয় সেই বইয়ের পাতা গুলো বিশ্বাস আর সন্দেহে ভরপুর "/

সুতরাং বিশ্বাসের সংঙ্গা টা এভাবে দেওয়া যায়...
"কোন বিষয়ে সন্দেহের পরিমান কম থাকাকে বিশ্বাস বলে"। বিশ্বাস আমাদেরকে সাহসী করে।