রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

বিজয়ী তুমি



তোমাকে ভালবাসি এটাইই কি আমার বড় দোষ বল? তোমায় শুধু ভাল ই বেসেছি কিন্তু বিগত দিনগুলোতে মুখ ফুটে বলতে পারিনি, তোমার মুখোমুখি হওয়ার সাহস টুকু সন্চয় করতে পারিনি। জীবনের কতটা পথ এক সাথে পাড়ি দিয়েছি আমরা, তবু ও পারিনি কেন জানো? কারন আমি বার বার তোমার নিকট ধোকাবাজ হিসেবেই প্রমানিত হয়েছি।পুনরায় তোমার নিকট ফিরে আর কোন ভুল করার ইচ্ছেই আমার ছিলো না।মনে মনে ভাবতাম হটাৎ এমন একদিন তোমার সামনে গিয়ে দারাবো যখন তুমি হাজারো অপমান করবে আমি সেদিন আর হারাবো না।তোমার চোখ থেকে ঝড়া প্রত্যকেটি জলের মুল্য হয়তো আমি দিতে পারবোনা তবে তোমার দেয়া সকল শাস্তিই কবুল  করে নিবো। যদি আমাকে ভুলে অন্য কাউকে আপন করে থাকো তবে নিজ হাতে তোমাদের শান্তির নীড় আমি বানিয়ে দেব, কারন আমি তোমায়ই ভালবাসি।জানতাম তুমি আসবেনা আমার এই হাত ধরতে, কোনোদিন এসে জানার চেষ্টাও করবেনা কেন আমার এই পলায়ন।কোনো দিন এসে বলবে না ভুল যা হয়েছে তো হয়েছে  চলো এক সাথে জীবনের পথে চলি। যে ভালবাসার নাম লিখেছিলাম সিনেমার মত আমার রক্তাক্ত দেহের মাধ্যমে আমার সেই ভালবাসার পরিনতি নাকি যাকে ভালবাসি তাকে পাশে পাওয়ার ভরসা নাই তাহলে সে ভালবাসা কে ফুটিয়েছিলাম কেনো বল?

আচ্ছা তুমি কি কোনো দিন ও আমার মনের কথা গুলো বুঝতে পারনি? অামাদের সম্পর্কের কীছুদিন পর এসে তুমি বললে " তুমি হারিয়ে গেলে আমার কি হবে?আমি কিন্ত আত্মহত্যা করে ফেলবো.! তোমার কথাটা আমায় ভাবাতো সবসময়।আমার পারিপার্শ্বিক অবস্থা এমন ভাবে চেপে ধরেছিল যার কারনে তোমাকে কষ্ট দেয়া ছাড়া কীছুই ছিলনা।পদে পদে তোমাকে বুঝানোর  চেষ্টা করেছি আমাকে ঘৃণা করার জন্য কিন্ত পারছিলাম না।আমি যাই বলতাম তুমি তা সাধরে গ্রহন করে নিতে।ধীরে ধীরে আমি আরো দূর্বল হতে থাকি।কী থেকে কী করব ভেবে পাচ্ছিলাম না।তোমার বাচার পথটা দেখাইয়া আমাকে তোমার নিকট নগন্য বানিয়ে পালালাম আমি....!

এরই মধ্যে কেটেছে  পাচটি  বছর।জীবনের চলার পথ অনেকটাই পরিবর্তন হয়েছে। তুমিও আজ অনেকটা বদলেছ, বদলেছে ভালবাসার  আকাশ।
 পাচ বছরের মাঝে আমাদের আজো দেখা করা হয়নি,আমাদের কারর ই মুখ থেকে "I Love You" কথাটা বলা হয়নি যদিও আমারা ঠিক জানতাম দু জনের মনে আমরা দু জন আছি ভালবাসার জায়্গা টা দখল করেই, তাইতো তোমার সেই কথাটাকে আমি মজা ভেবে মজা করেই মুখে একটা ভরাট হাসি নিয়ে বল্লাম"হারিয়ে গেলে খুজে নিবা"
জান? তোমার কথাগুলো শুনার পর আমি আর পারিনি "ভালবাসি তোমাকে" বলতে। কদিন পর পর ফোন দিতে জানতে চাইতেম কেমন আছো কতটা ভুললা আমাকে? তুমি যে ইচ্ছে করে দেখা করছনা এই বুকটা ফেটে যাচ্ছিল জানো?যাকে আমি এত ভালবাসলাম সে কীনা এত সহজে আমাকে ভুলতে পারলো! একটা আকুতি নিয়ে একবার বলতে চেয়েছিলাম শুধু আমাকে একটু ঠাই দাও তোমাকে ছাড়া আমি বাঁচতে পারছিনা। কিন্ত যখন বুঝতাম তুমি আমাকে ছাড়া বাঁচতে শিখে যাচ্ছ তখন আর কিছুই বলতে পারতাম না। হয়ত তুমি আমাকে চাওনি তাই আমার হারিয়ে যাওয়াটা মানিয়ে নিতে পেরেছিলে। যদি আমাকে চাইতে কোনও দিন ও আমাকে হারিয়ে দিতে না বরং আমার দুহাত শক্ত করে ধরে রাখতে সারা জীবনের জন্য। এই কথাটা বুঝার পর নিজেই হারিয়ে গেলাম অনেক দূরে কিন্ত তোমাকে হারানোটা মানতে পারছিনা আজো। তারপর থেকে আজও কত জল ঝরে যায় দুচোখে কিছুই জানো না তুমি। আজো ইচ্ছে জাগে একবার এসে সেই আগের মত বল মিজান কাদছ কেন? আমিও কাঁদব কিন্ত কান্না থামাও বলে অশ্রু মুছে দিতে।


আমি হারিয়ে ফেলেছিলাম আমার আমিকে । আজও খুজে পাইনা সেই হারিয়ে ফেলা আমাকে যার একটা ছোট্ট মন ছিল ভালবাসার । আজ বেঁচে আছি মনহিনা একটা মূর্তি হয়ে যে আর কিছুই অনুভব করতে পারেনা। জানিনা আজও অবসরে আমাকে ভাবো কিনা? হয়ত ভাবলে ভাবো কোন এক সুখের ঠিকানায় বসে সুখী আছি আমি কিন্তু না আমি যে তোমার ফেরার পথ চেয়ে দিন গুনছি । যে মন তোমাতে হারিয়ে এসেছি তার কি আর বাচা হয় বল? বেচে তো ঠিক ই আছি কিন্ত তোমায় ভুলাটা হয়নি। কি করে হবে বল আমি যে আমার মাঝে শুধুই তোমাকে খুজে ফিরতাম ।তোমার স্মৃতি গুলো আমাকে এতটাই আঁকড়ে রেখেছিল যে পারিনি তোমার স্মৃতির দেয়াল ভেঙ্গে অন্য কারো হতে।

তুমি কি জান আজ আমার অবসর কাটে তোমার দেয়া স্মীতি স্মরন করে।
তুমি বড় অদ্ভুত তোমার সবই সাজানো হল।
শেষ টায় আমার সাদা_কালো ঘুড়ি তোমার সঙ্গে ঐ নীল আকাশে উড়বে বলে সেঝে এসে বিদায় বৃষ্টিতে ভিজে আমার চোখে রক্তখরন ঘটিয়ে তোমার পায়ে আল্তায় আলপনা একে দিয়ে অনেকটাই ভালবাসার মসলা দিয়ে তৈরী করা নাটাইয়ের মান্জা সুতুয় নিজেই  আত্মহতি দিলাম



__বাস্তবিক ঘটমান জীবনে প্রত্যেকটির পৃষ্টের অপর পৃষ্টে সত্যটা লুকানো থাকে,যদি কেহ্ জানার চেষ্টা করে তবেই সেটা খুজে পায়।__