সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

নিরবতা যেখানে আশার প্রদীপ

হঠাৎ তুমি নীরব হয়ে গেলে কেন
তোমার নীরবতায় আমি আকস্মিকভাবে
তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছি
তুমি আমার অনুভূতি উপলব্ধি করতে পারো নি।
সে যাই হউক! তোমার এমন নীরবতা
আমার ঘুম কেড়ে নিয়েছে।
আমার স্পর্শকাতর হৃদয় তোমার নীরবতা
ভাঙ্গবার চেষ্টায় অবসন্ন হয়ে পড়েছে
কিন্তু তবুও তোমার নীরবতা ভাঙ্গে নি!
এ কেমন নীরবতা তোমার!
তুমি এভাবেই নীরব হয়ে থাকতে চাও জীবনভর
তাহলে শুনো তুমি খুব বেশিদিন পারবে না
এভাবে নীরব হয়ে থাকতে
আমার হৃদয়ের আকণ্ঠ ঝরা একদিন তোমার
নীরবতা ভাঙবার প্রচেষ্টা করবেই।
সেদিন তোমার নীরবতার অবশ্যম্ভব ভাঙন হবে।
তুমি আবার আগের মতো আমার সাথে কথন করবে।
শুনে রাখো এই আমার নিটোল প্রত্যাশা।

আমি আর আমার অনুভূতি সঙ্কিত তুমি ও তোমার স্মীতিকে নিয়ে।

অনুভূতি গুলো কেন এত সঙ্কিত
একেন স্মৃতি হৃদয় পাতায়
স্বপ্নের আকাশে সুপ্তসুরে অঙ্কিত
কোথা হতে কে সে আসিয়া স্পর্শ করে যায়।

কিছুক্ষন পূর্বে যা শেষ হয়
তাতো অতীত হয়ে যায়
আমিও তো তাকে ভুলে গিয়েছি
কেন তবে সে স্বপ্নের পথে বাধা হয়ে দাড়ায়?

আমি যাহা চাইলাম তাতো বৃথা হয়েছে
তাতে আমার আপত্তি বলতে কিছু নাই
কাউকে না কাউকে তো সে পেয়েছে
তবে আমি কেন স্বপ্নে পথে রূদ্ধ হয়ে যাই

চিত্তে যে জন ছিল সে তো কাহার বনিতা
আমি তো নিন্দ তাহার প্রেমাত্মার মনে
কেন মৃত আঙিনায় হানা দেয় সুদর্শীতা
কেন নির্বাক করে যায় ক্ষনে ক্ষনে!

প্রেমাত্মাকে সপিতে নবজনে
দূরবীত হয় না যে ঘনসিয়া;
হৃদে ভাসিয়া স্মৃতি সংগোপনে
সে যে মোর প্রেমাত্মাকে রাখিছে বাধিয়া।