বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

ভালবাসা অতীত ভবিষ্যৎ এবং বর্তমান দেয়াল।

আজকে পায়ের নিচে যে মাটিটা আছে, সেটা
অন্যকোন মাটিও হতে পারত।
ভালো থাকুক জীবনের সব মুহুর্তগুলো, বেঁচে থাকুক দুঃখ-কষ্ট আর সুখের সকল স্মৃতি বুকের কোন গহীন কোণে বেঁচে থাকার স্পৃহা হয়ে।
-
এখন থেকে আজীবন যে জীবনটা অতিবাহিত করবো কীছুদিন আগে  ঘটে যাওয়া কোন ঘটনার অনুকূল/প্রতিকূলতায় হয়তো বা সেটা ভিন্ন ররকমও হতে পারতো। কে জানে কোন জীবনটা উত্তম, এখন থেকে ভবিষ্যতে যে জীবনটা অতিবাহিত করবো সেটা, না যে জীবনটা কীছুদিন আগে ঘটে যাওয়া ঘটনার পূর্বে থেকে অতিবাহিত করতাম সেটা...?
-
যেই তুমি অতীত হয়ে গেছো সেই  তুমি  শুধুই অতীত চাইলেও তা আর ফিরিয়ে আনতে পারবো না। আর যে জীবনটা এখন থেকে আজীবন অতিবাহিত করবো সেটা কেমন হবে সেই ভবিষ্যতটাও জানি না। কি হবে এত ভেবে এই অতীত আর ভবিষ্যত নিয়ে...! এই দুটোকে না মিলিয়ে থাকুক না কেউ মাঝখানে দেওয়াল হয়ে। হবই না হয় সেই কেউটা আমি নিজেই, অতীত-ভবিষয়তের মাঝে বর্তমানের দেওয়াল হয়ে। তুমি বাঁচ সারা জীবনের জন্য আর আমি বাঁচি শুধু আজকের জন্য, এই মুহুর্তের জন্য।
-
তুমি বাঁচ জীবনের ৫০/৬০টা বছর একসাথে, আমি না হয় ছোট্ট করে বাঁচবো, জীবনের প্রতিটা মুহুর্ত, প্রতিটা সেকেন্ড। ঠিক যে ভাবে এক জন ক্লাইম্বার, স্কুবাডাইভার বা স্কাইডাইভার ডাইভের সময়ে সেই মুহুর্তের প্রতিটা সেকেন্ডেই নেয় বেঁচে থাকার স্বাদ। এই জীবনের প্রতিটা সেকেন্ডই যদি না বাঁচতে পারি, অপমান করা হয়ে যাবে যে জীবনের মূল্যটাকে। বেঁচে থাকার আনন্দটাই যে পৃথিবীর সব কিছু থেকে আলাদা।
-
ইয়েব, মানে, আপনি...?
কি দরকার এত অতীত আর ভবিষ্যত নিয়ে ভাবার ? তার চেয়ে বরং আপনি এই অতীত-ভবিষ্যতের মাঝখানে বর্তমানের দেওয়াল হয়ে বাঁচুন।"
-
আর এই যে শুনছেন..!? হ্যাঁ, হ্যাঁ আপনাকেই বলছি।
এই যে এত কষ্ট করে পুরোটা লেখা পড়ছেন সে জন্যে আপনাকে অনেক ধন্যবাদ । কিন্তু এত কষ্ট করে এত সুন্দর একটা লিখা আপনার জন্যে আমি লিখছি তার জন্যে আমায় কি দিবেন...??
ভয় পাবেন না, বেশি কিছু না, শুধু প্রতিশ্রুতি দেন যে এখন থেকে আপনি জীবনের প্রতিটা মুহুর্তই বাঁচার চেষ্টা করবেন। বেশি কঠিন হয়ে যাচ্ছে ব্যাপারটা...? আচ্ছা যান তাইলে শুধু আমার এই পোষ্টে লাইক,কমেন্ট শেয়ার না মাইরা চলে যান...!!  
আচ্ছা থাক, এত সুন্দর একটা পোষ্টের জন্যে একটা  মিথ্যাপবাদই দিয়া যান।